কবিতা ও আবৃত্তি: ও মোর বিধাতা

কবিতা : ও মোর বিধাতা
 আরিফুর রহমান 
ও মোর বিধাতা
এই কড়া কার্বনের আস্তরণের খাঁজে
উত্তপ্ত খরায় খোলা পায়ে হাঁটছি পথে,
নিরুপায় আয়ুষ্কালের রথে আমায় একা ফেলে
তুমি ফিরে যেও না।
এখানে প্রাণ হাতে ভীরু পায়ের পদচিহ্নেও
কুকুরের চেয়েও তীর্য ঘ্রাণ পায় পাপিষ্ঠতা,
ধীর কল্যে আষ্টেপৃষ্টে বাঁধে অক্টোপাসেরা
বাহুবলে আছড়িয়ে নিংড়িয়ে নেয় ধোপীরা।
এমন মাটির আস্তরে কেনইবা ছুঁড়ে দিলে?
ভালইতো কাটছিল তোমার রাজ্যে
খিদে ছিল, ছিল না মল-মুত্র, জল ছিল নির্মল
পায়ের নিচে নির্ঝরিণী প্রবাহিত অনন্তকাল।

ও মোর বিধাতা
স্কুল কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়, কোনটাইতো
তোমার বিচারের মানদন্ডে পাবে নাতো মান,
এতো শত শিক্ষার ভারে শেখা হল না আর
তোমার নাজিল ধর্মগ্রন্থ আর ভাষা তার।
এখানে জীবন আর জীবিকার নেশায়
স্বভাবের চাপে মনের লোভে ভেঙ্গে চলি
তোমার সব রীতি, নীতি, নিয়ম আর কানুন,
এ ধরায় মন হয় মশগুল সুখের ছাড়পত্রে।
এমন লোভী মন দিয়ে কেনইবা পাঠালে?
ভালো যদি চাই যার নেই কোন শেষ
সেতো তোমার স্বর্গে, ভয় ঐ লেলিহান অগ্নিতে
মিলবে কি কভু ঠায় ছেড়ে আসা সেই স্বর্গপুরে।

ও মোর বিধাতা,
দয়া করো তুমি আমায়
আমি পাপিষ্ঠ পথিক, বারে বারে
পথ হয় ভুল, ভুলগুলো ফুলে ভরে
তোমারই পথে পথ মেলাও প্রভু।
এই পৃথিবীতে প্রতিপদে ভাঁজে ভাঁজে মোহ
খিদে মোহ, প্রেম মোহ, শ্রেষ্ঠত্ব মোহ
কত যে মোহ!!!
সেই মোহে পা পিছলে যদি পড়ি খাদে
পাপের খরস্রোতে আমার জীবনের পাড়
ভাঙ্গতে ভাঙ্গতে জমিনই যেন মেলা ভার
অঘোরে মত্ত কুলহারা শূন্য বালুচর,
তোমার নির্দেশিত পথই পথিকের দিশা
পথে ডেকে পথ দেখাও আমায়।

ও মোর বিধাতা
নিশ্চয়ই তুমি ক্ষমাশীল, ক্ষমাই তোমার ছন্দ
তাই কোন কদরের সন্ধানী রাতে, এক পাপিষ্ঠ
দুহাত পেতে চেয়ে যায় ক্ষমা তোমার পানে,
ক্ষমা করার তরে প্রভু, কভু ফিরিওনা আমায়।

সোনাডাঙ্গা, খুলনা।

, ,

Post navigation

Leave a Reply

Your email address will not be published.