আইডিতে তিনিই রাণী

সৈয়দা শর্মিলী জাহান রুমী
ঢাকা।

রম্যরচনাঃ আইডিতে তিনিই রাণী

ফেসবুক বন্ধুরা আমার কাছে একটি পরিবারের মতো। তাই শুরু থেকেই আমি ফেসবুকে সঠিক পরিবার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি। অর্থাৎ ফেসবুক পরিবারের সদস্য সংখ্যা যথা সম্ভব কম রেখেছি। নষ্ট নীড়, আমি গাধা, সাইকেল মজিদ, আউলা রাণী, বিদিশা কোকিল এসব আমার দরকার নেই।

একদিন রিকোয়েস্ট লিস্ট নিয়ে বসলাম। একটা একটা করে নাম রিমুভ করছি, এমন সময় একটা নামে এসে চোখ আটকে গেল। আইডির নাম ” রাণী”!

চক্ষু চড়কগাছ ! এটাতো বড় ফুফু। বয়স্ক মানুষ। আইডি ফেক না রিয়াল তাই নিয়ে চিন্তায় পড়লাম।…ফুফু অত্যন্ত মজার মানুষ। সব বয়সের মানুষের সাথেই মিশতে পারেন। ফুফুর রিকুয়েস্ট একসেপ্ট না করলে খবর আছে। ফোন দিলাম ফুফুকে। রিসিভ করেই “ওইই! তিনদিন আগে ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট পাঠাইছি আমারে নেস না ক্যা?”

” ও তুমি ফেসবুকে একাউন্ট খুলেছ?”

” হুম, জামান মোবাইল কিনে দিছে। ফেসবুকে একাউন্ট খুলে দিছে। আমার রিকুয়েস্ট তোরা একসেপ্ট করস না ক্যা? কি আছে রে তোগো আইডিতে?”

বুঝলাম আইডি ঠিক আছে।

ফুফু আমাকে সবচেয়ে আদর করে তাঁকে এড না করলে মন খারাপ করবে। বললাম “আচ্ছা ফুফু তোমাকে এখনি এড করছি। একটু শিওর হলাম যে আইডি ঠিক আছে কি না?”

এড করে চিন্তায় পড়লাম। নতুন নতুন ফেসবুক ব্যবহার করছেন । নিয়মকানুন তো সব বুঝবেন না। উল্টাপাল্টা না করেন।

এরপর একদিন সাজুগুজু করে ভাব নিয়ে ছবি তুলে নতুন প্রোফাইল পিকচার দিলাম। ওখানে ফুফু কমেন্ট করেছে “ওইই মনে পড়ছে। ওইদিন দেখলাম তোর মাথার চুল অনেক পাকছে। কলপ দিতে পারস না? ওই যে ছবিতেও দেখা যাইতেছে!”

একদিন প্রথম পায়েস রেঁধে সুন্দর ডেকোরেশন দিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দিলাম। সেখানে ফুফু কমেন্ট করেছে “বুঝলি মন ভালো নাই রে। আমার নতুন টিস্যু কাতান শাড়ীতে বিলাইয়ে পায়াখানা করছে। খামচাইয়া এক জায়গায় ছিঁড়াও ফেলছে!”

একদিন নঁকশী পিঠা বানিয়ে ছবি তুলে পোস্ট দিলাম। ২০ জন প্রশংসা করে কমেন্ট করল। তারপর ফুফু কমেন্ট করল “ওইই, জীবনে এত পিঠা খাওয়াইলাম তগোরে এগুলা কি বানায়ছিস? ডিজাইন হয় নাই। ইন্দুরের মতো লাগতেছে ওগুলা।”

ফুফুর কমেন্টে লাইক পড়ল ১০ টা। আমি শেষ!

একদিন ছোট গল্প লিখে পোস্ট দিলাম। ফুফু কমেন্ট করল “ওইই, জামাই তোরে পিটায় এইটা এতদিন চাপা রাখছিস ক্যান? আমি এক্ষণি বাড়ী থেকে আসতেসি। পিটায়া ওরে আইজ বাপের বাড়ী পাডামু। আইজ আমার দিন। ”

সাথে সাথে চোখে শত শত সরিষা ফুলের ক্ষেত দেখলাম। তাড়াতাড়ি ফোন করলাম ” ফুফু এটা তো গল্প। সত্যি না। আর তুমি কি কমেন্ট কর ফুফু? আমার মানসম্মান নিয়ে টানাটানি পড়ে যায় । মেসেঞ্জারে বললেই তো পার এসব।”

” ক্যা? কমেন্ট করলে কি হয়?”

” সবাই দেখে কি ভাববে না?”

” আমার ভাস্তিরে আমি লেখি, মাইনষে দেখবো কেন? আমার যা মনে হয় আমি লেখমু।”

হয়েছে কাজ। বুঝলাম অন্যপথ ধরতে হবে। ফুফুকে একদিন বললাম, ফুফু আমার আগের আইডি বন্ধ, নতুন আইডিতে রিকুয়েস্ট পাঠাও।

নতুন আইডিতে শুধু ফুফুই আছে! তিনি একাই এই আইডির রাণী। আমিও এখন চিন্তামুক্ত। ফুফু আর ভাইঝি মিলে সুখ দুঃখের কথা বলি।

অচিনপুর ডেস্ক/ জেড. কে. নিপা

Post navigation